মেঘের রাজ্যে: পর্ব ০১

বায়ুমণ্ডলে মেঘের আনাগোনা সারা বছরই থাকে। যেকোনো মুহূর্তে পৃথিবীর প্রায় ৫০% অঞ্চল জুড়ে মেঘ বিরাজমান থাকে।  সাদা চোখে মেঘের প্রকারভেদ তেমন ধরা না পড়লেও মেঘেদেরও রয়েছে উৎপত্তি, আকার-আকৃতি ও গঠনে ভিন্নতা এবং প্রকারভেদ।

মেঘের উৎপত্তি

আমরা সকলেই জানি মেঘ প্রধানত পানির অতিক্ষুদ্র কণা ও বরফের স্ফটিক দিয়ে তৈরি। বিভিন্ন আকৃতির মেঘ গঠন প্রক্রিয়ায় ভিন্নতা দেখা দেয়। প্রধানত চারটি প্রক্রিয়ায় মেঘ সৃষ্টি হয়ে থাকে। প্রক্রিয়াগুলো নিম্নে সংক্ষেপে আলোচনা করা হলো।

১) ভূপৃষ্ঠের উষ্ণায়ন : এ প্রক্রিয়াটি আমাদের সকলের কাছেই পরিচিত। সূর্যরশ্মি প্রভাবে ক্রমান্বয়ে ভূপৃষ্ঠ ও এর সংলগ্ন বায়ু উত্তপ্ত হয়। উত্তপ্ত বায়ু অধিক জলীয় বাষ্প ধারণ করে উপরে উঠতে থাকে। উঁচুতে বায়ু চাপের হ্রাসের ফলে জলীয় বাষ্প ঘনীভূত হতে আরম্ভ করে এবং মেঘে পরিণত হয়।

২) বায়ুস্তরের মুখোমুখি সংঘর্ষ: এই প্রক্রিয়ায় দুইভাবে মেঘ সংগঠিত হতে পারে। উষ্ণ বায়ু যখন শীতল বায়ুর ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে শীতল বায়ুকে প্রতিস্থাপিত করে মেঘের সৃষ্টি হয়। আবার শীতল বায়ু যখন উষ্ণ বায়ুকে প্রতিস্থাপিত করে তখন ভিন্ন প্রকারের মেঘের সৃষ্টি হয়।

৩) বায়ুর অস্বাভাবিক উর্ধ্বে আরোহণ: মূলত তিনটি কারণে বায়ু জোরপূর্বক উপরে উঠতে বাধ্য হয়। প্রথমত, নিম্ন বায়ুচাপ অঞ্চলে উচ্চচাপ অঞ্চল থেকে বায়ু আসতে আরম্ভ করে ও কেন্দ্রে মিলিত হয় এবং বায়ু উপরে উঠতে বাধ্য হয়। দ্বিতীয়ত, খাড়া অঞ্চলে বায়ু প্রবাহের সময়ও উপরে উঠতে গিয়ে ঠান্ডা হয়ে পড়ে ও মেঘের সৃষ্টি করে। শেষতক, ভিন্ন তাপমাত্রার বায়ু মুখোমুখি হয়েও উর্ধ্বে আরোহণ করে মেঘের সৃষ্টি করে।

৪) পর্বতশ্রেণীর প্রভাব: বায়ু পর্বতশ্রেণীর সাথে ধাক্কা খেয়ে উপরে উঠে এবং শীতল হয়ে মেঘের সৃষ্টি করে।

মেঘেদের প্রকারভেদ

আকার ও গঠনের ভিন্নতার পাশাপাশি উচ্চতায় মেঘেদের মধ্যে পার্থক্য দেখা যায়। প্রধানত উচ্চতার পার্থক্যের ওপর ভিত্তি করে মেঘেদের চারটি প্রকারে ভাগ করা হয়ে থাকে। প্রকারভেদগুলো নিম্নরূপ:

১) উচ্চ মেঘ: এদের উচ্চতা  ৫০০০মিটার থেকে ১৩,০০০মিটার। এ শ্রেণীর অন্তর্ভুক্ত হলো:

  • সিরাস
  • সিরোকিউমিউলাস
  • সিরোস্ট্র্যাটাস

২) মধ্যম মেঘ: এদের উচ্চতা ২০০০মিটার থেকে ৭০০০মিটার। এ শ্রেণীর অন্তর্ভুক্ত হলো:

  • অ্যাল্টোকিউমিউলাস
  • অ্যাল্টোস্ট্র্যাটাস

৩) নিম্ন মেঘ: এদের উচ্চতা ভূপৃষ্ঠ থেকে ২০০০মিটার। এ শ্রেণীর অন্তর্ভুক্ত হলো:

  • স্ট্র্যাটাস
  • স্ট্র্যাটোকিউমিউলাস
  • নিম্বোস্ট্র্যাটাস

৪) অন্যান্য: ভূপৃষ্ঠ থেকে ১৩০০০মিটার পর্যন্ত সর্বত্রই এদের বিচরণ। এ শ্রেণীর অন্তর্ভুক্ত হলো:

  • কিউমিউলাস
  • কিউমিউলোনিম্বাস

 

ফাতেমা তুজ জোহরা সাবা

শিক্ষার্থী,ফলিত গণিত বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়